কবিতা | চিন্তাসূত্র
১১ বৈশাখ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | ২৪ এপ্রিল, ২০১৮ | বিকাল ৪:০৫

মহুয়ার ভেলা ও অন্যান্য ॥ পলিয়ার ওয়াহিদ

নিরাকার আমি যার প্রেমে পড়ি— তার আছে ফলের দোকান যে আমার প্রেমে পড়েছিল— তিনি এক মাংসের দোকানী আমাদের ভালোবাসার যিনি মালিক— তার আছে পাখির আড়ৎ খাঁচার স্কুলে ভর্তি হচ্ছে পালক! দয়াল আমায় দিও না তুমি ফেরত। ঈর্ষা নবির মা মহুয়া কলঙ্ক চেয়েছিল, বুঝি প্রেম তার মেয়ে পরম চিবুকে ঝুকে খুঁজেছিলো আপনার ছায়া বলতো আমাকে কানে...

আসাদ মান্নানের তিনটি কবিতা

এক পাথরের গান একজন কবিকে আমি আজ রাতে শুভেচ্ছা জানাতে গিয়ে দেখি: সবাই মৃতের ঘরে অন্ধকারে ঢুকে গেছে—মৃত! বলো, মৃতকে কিভাবে আমি এই রাতে শুভেচ্ছা জানাবো! আমার চোখের নিচে বসে আছে দীর্ঘ এক ক্ষ্যাপা নদী; যে আমাকে ছুঁয়ে ছুঁয়ে যায় আমি তাকে নরকের ক্ষুধা থেকে বাঁচিয়ে রেখেছি; একটা নক্ষত্র আমি মন্ত্র দিয়ে হাতিয়ে নিয়েছি আকাশের...

সুরতনামা ও অন্যান্য ॥ পাপিয়া জেরীন

স্পর্শন তোমাকে আমি পথের মাঝখানে ছোঁবো, হাজার হাজার মানুষের ভিড়ে সারসের মতো তুলে নেব আধখোলা ঠোঁটের ঝিনুক; তোমাকে ছুঁয়ে দেব মাছবাজারে তুমি চোখ-পেট-কানকো ছুঁয়ে রূপালি ইলিশ— আর আমি পুচ্ছ বাঁকিয়ে পায়ে ভর করে ঝাঁপ দেব থলের ভেতর। তোমাকে জলে ছুঁয়ে দেব ডুবসাঁতার নখাগ্র থেকে চুল প্যাঁচাব আপাদমস্তক, তোমাকে আমি পথের...

তবু হবে আসা ও অন্যান্য ॥ জাহিদুর রহিম

মনে পড়া শরীরের কথা ভাবি কখনো কখনো; যেন আকাশ থেকে দেখা মাটি আর কাদা—এক হয়ে থাকা চোখের সুর্মার মতো নির্ভুল এক অপরূপ। শরীরের কথা মনে পড়ে যেন পুরনো দিনের কথা—যেন বহু দূরে দাঁড়িয়ে থাকা একাকী জংশন—যেন বিপরীতে ছুটে আসা দুটো ট্রেন—যেন প্রতিধ্বনির বুকে শুয়ে থাকা ধ্বনির আদর। কোথায় আছ শরীর—এই বোকা অবেলায়; এত চুপচাপ—ব্যথা...

সুরসামগ্রী ॥ আহমাদ মুজাহিদ

ফুলবৃত্তান্ত বাতাসে ভেসে আসা ফুলের রেণু ফুটে আছে রোকেয়া হলের বারান্দায়; এ কোন কামাচ্ছন্নতায় সৌর ঝড়ে আক্রান্ত সূর্যমুখী— ঊর্ধ্বপানে মেলেছে তার ডানা রক্তস্নান শেষে আবারো জন্ম দেবে সুকঠিন সহস্র মৃত্যুর; অথচ, ঘোড়ার জিন টেনে ধরে তুমি হে আর্য যুবক খুঁজে যাও বাতাসের আঁশে বোনা ফুলের রেণু, আদিম মোহিনী ঝঙ্কার ঝরে...

অদৃশ্য ও অন্যান্য ॥ দিব্যেন্দু শেখর দাস

খবর কী খবর? কোনো খবর নেই ‘শনিবারের চিঠি’ আসা বন্ধ হয়ে গেছে ভেতরটা তোলপাড় করছে। সেই বিকেল থেকে বিছানায় শুয়ে চারপাশের নিস্তব্ধতাও যেন থমকে দাঁড়িয়ে চিৎকার করে উত্তর চাইছে। দলছুট হাতি আকাশ কাঁপিয়ে ডেকে ওঠে কৃষ্ণপক্ষে নদীতে গভীর রাত নেমে আসে প্রেম নয় বিশ্বাসঘাতকতার গল্প, বলব কাকে? জোর করে হাসি—হ্যাঁ, সব খবর ভালো...

ব্যক্তিত্ববাদ ও অন্যান্য ॥ আলীম হায়দার

বিষণ্ন সরোবর ধেনু নয়, এটা হয়, তুমুল খুর তুলে ছুটে আসে বাজি মুক্ত করো কর, জলেতে ভেজাও আঁখি—ভিজুক পাণি অবনী লোচনে কষ্ট মোচনে কোকনদ উঠিছে ডাকি তরণীর ঘরণীতে সরোজ ছেড়েছে বাটী: ক্রন্দসী অবাক নিমিষেই ভরে গেলো পাথরের ফুলদানি: মন্থরিত সুবাস কোমল সুদর্শনা উড়ায়েছে গোপী দালান-কোটরজুড়ি বিলে-ঝিলে একা কাঁদে নিশিথিনী দিনমান:...

দূরত্ব সিরিজ ॥ শাপলা সপর্যিতা

দূরত্ব-১ এখানে কফি নেই। বিশেষত কফি আমার পছন্দও নয় খুব বেশি হলে হঠাৎ কখনো এস্প্রেসো খুব তেতো। এক চুমুক। ওতেই শেষ। ব্যস- এই নিঝুম রাত। আমি স্বাধীন—একটি খোলা বারান্দা কিনেছি জীবনের দামে। প্রচুর হাওয়া আসে প্রচুর পাখি বসে সকালের মতো এক্কাদোক্কা খেলতে খেলতে দুপুরের রোদ খুঁটে খুঁটে সন্ধ্যে নামায়। আহা, ঝুম বৃষ্টি...

জিরাফের ঘুম ও অন্যান্য॥ সুপ্তা সাবিত্রী

শব্দঋণ আমাকে পান করো আমৃত্যু কোলাহলে। গূঢ় গাণিতিকতায়—ছন্দ ফেলে, নামতার পারদে নামাও ওঠাও জ্বর। নির্মোক জড়িয়ে গতকাল পার হয়ে এসে,মহাকাশে স্থির হতে চায় আগামীর ভয় নেই বলে— ভয় নেই অন্ধকার শূন্যতায়। আলোর তাড়নে শব্দকাতর ওরা সাপের জীবন পড়ে, গুনগুন স্বরে পিতা আসেন তার ভেতর। হাত বুলিয়ে নিয়ে যান, খণ্ডিত কোনো ঘোরে— জলের...

সমর্পণ ও অন্যান্য ॥ শামীম হোসেন

সমর্পণ পকেটে হাত দিয়ে অন্ধকারে হাঁটি মহিলা পুলিশ দেখে দুহাত তুলি— যেন আমি তার ফেরারি আসামি! গ্রীষ্মে আগুনশাড়ি পরেছে পৃথিবী বর্ষায় জল চেয়ে দুচোখে তার— নদী খুঁজে মরি। গভীর দূরত্বে লুকিয়েছে চূর্ণচাঁদ— পথের কাছে পা জমা দিয়ে আসি। বসন্তের জাদুঘরে পোশাক পাল্টে নিলে তুমি হও লেবুর বাগান আমার সুগন্ধ বাসনা ডেকে...