ভিন ভাষার কবিতাগুচ্ছ ॥ রওশন হাসান | চিন্তাসূত্র
৬ আশ্বিন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ | ২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ইং | রাত ১০:০৩

ভিন ভাষার কবিতাগুচ্ছ ॥ রওশন হাসান

ওয়েস্টমিনিস্টার ব্রিজের ওপর॥ উইলিয়াম ওয়ার্ডসওয়ার্থ
এর চেয়ে অধিক সৌন্দর্য পৃথিবীর
আর প্রদর্শন করার বোধ করি আর নেই
নির্বোধ সেই
যে এমন মাধুর্যময় মহিমাকে অনুধাবন না করতে পারে
এ মনোরম হৃদয়স্পর্শী দৃশ্য যদি হৃদয়াঙ্গম না করতে পারে
দেখো শহরটা কেমন ঝলমলে সাজে আচ্ছাদিত
নিস্তব্ধ সকালে নির্মল উন্মোচিত
দেখো জলযানগুলো, টাওয়ার, অট্টালিকা, রঙ্গশালা আর মন্দিরগুলো খোলা মাঠ জুড়ে
মাটির ওপর বিস্তৃত আকাশের কাছাকাছি আছে দাঁড়িয়ে দূরে।
সব কিছুই ধোঁয়াহীন বিশুদ্ধ বাতাসের আলিঙ্গনে
কেমন ঝকঝকে সুদীপ্ত উজ্জ্বলতার আহবানে
সুর্য্য কখনো এত উলম্বভাবে উদিত হতে দেখিনি
এমন মুগ্ধকর পাহাড়-পর্বতের উপত্যকায়
এরকম প্রশান্তি আমি কখনো দেখিনি
অনুভব করিনি এমন প্রগাঢ় গভীরতায়।
নদী কেমন ইচ্ছাধীন বয়ে চলেছে
ও স্রষ্টা!শহরের সব বাড়িগুলি এখনো
নির্বিঘ্নে ঘুমিয়ে আছে
আর প্রতিটি মহৎ অন্তরগুলোও
পরম শান্তিতে ঘুমিয়ে আছে।

ছোট্ট পাখিটি ॥ রবার্ট ফ্রস্ট
আমি ইচ্ছেপোষণ করছি পাখিটা যেন
একেবারে উড়ে চলে যায়, কোথাও দূরে
আমার জানালার পাশে সারাক্ষণই কেন
গান গায় সে মিষ্টি সুরে?
আমি ঘরের দরজা থেকে করতালি দিয়ে
তাকে তাড়িয়ে দিতে চাচ্ছিলাম বটেই
(পাখিটিকে) যখন সহ্য করতে
পারছিলাম না মোটেই।
আংশিক একটি গোলযোগ হয়ত আমার মধ্যে আছেই
পাখিটি একাই এরজন্য দায়ী নয় নিশ্চয়ই।
অবশ্যই একটি গন্ডগোল আছে তা স্পষ্টই বিদ্যমান
নইলে কেনই বা অহেতুক, অকারণ
আমার স্তব্ধ করে দিতে ইচ্ছে করে এইসব সুরেলা গান?

ঘুমাও, আরও কিছুক্ষণ ঘুমাও, আমার শুভ্র মুক্তো॥ জন কীটস
প্রিয়ে, ঘুমাও, আরও কিছুক্ষণ ঘুমাও,
আমার শুভ্র মুক্তো!
তোমার শিয়রে বসে থাকতে দাও
আমায় নতজানু হয়ে।

এবং আমাকে আহ্‌বান করতে দাও
স্বর্গ থেকে নেমে আসা নূরকে
যা ঈশ্বরের কৃপা হয়ে তোমার চোখ ছুঁয়ে দিক
এবং আমাকে মুক্ত বাতাসে
সুখকর নিঃশ্বাস নিতে দাও
চতুর্দিক থেকে এরা জড়িয়ে রাখুক তোমায়
স্বেচ্চায় আমার এ আত্মসমর্পণ,
অধীনতার এই ব্রত
দৈবাৎ এই দৈবজ্ঞ বন্দনা,
এই প্রেম
আমার পরম ভালোবাসার জন্যই।

দেয়ালের ফাটলের মাঝে ফুল ॥ আলফ্রেড লর্ড টেনিসন
দেয়ালের ফাটলের মাঝে তৃণদল
সে ফাটল থেকে আমি তুলে নেই
বন্য ফুল তোমায়
তোমার শেকড় এবং সব এখন আমার হাতের মুঠোয়।

ক্ষুদ্র ফুল, আমি যদি তোমাকে
করতে পারি অনুধাবন
তুমি কি,
শেকড়, সবকিছু এবং তোমার সর্বসত্তাকে
আমার এখন জানা জরুরি স্রষ্টা এবং মানুষের স্বরূপের কারণ।

ভালোবাসার তত্ত্ব ॥ পি বি শেলী
ঝর্ণা সদাই নদীতে মিলিত হয়
এবং নদী মেশে সাগর জলেতে
অনন্তকাল ধরে স্বর্গ হতে বহতা বাতাস মেশে
সুললিত অনুভূতিতে।
এ পৃথিবীতে কিছুই একের মধ্যে সীমাবদ্ধ নয়
দৈববাণী স্বীকৃত নীতিতে একের সঙ্গে
অন্য অন্তরাত্মা মিশে রয়
বলো তবে, আমি কেন তোমাতে মিশে নই?

চেয়ে দেখো, আকাশটা কেমন পাহাড়কে করে
স্বর্গীয় চুম্বন
ঢেউগুলো একে অন্যকে জড়িয়ে করে
ভালোবাসা নিঃস্বন
কোন পুষ্প-বোন পাবেনা ক্ষমা
এ চরাচরে
যদি সে নিজ ভাইকে ইচ্ছাকৃত অবজ্ঞা করে।

সূর্যালোক যেমন পৃথিবীকে
করে আলিঙ্গন
এবং চাঁদের আলো সাগরকে
করে সম্মোহন
এসব মধুর কর্মগুলো গুরুত্বহীন,
মলিন অবশেষে
যদি তুমি আমাকে চুম্বন না করো
যদি একাত্মতায় না রও মিশে।

যখন আমি বড় হলাম ॥ ল্যাংস্টন হিউজ
বহুদিন আগের কথা
আমার একটি স্বপ্ন ছিল যা আমি
প্রায় ভুলেই গিয়েছিলাম।
কিন্তু স্বপ্নটি আমার চোখের সমুখেই ছিল
চোখের সমুখেই ছিল

উজ্জ্বল সূর্যের মতো ছিল
আমার স্বপ্নটি।

তারপর দেয়াল সৃষ্টি হতে লাগলো
আস্তে আস্তে
আমার ও আমার স্বপ্নের মাঝখানের দেয়ালটি
ক্রমাগত আকাশ ছুঁতে লাগলো
সে দেয়াল সব ঢেকে ফেললো
সেই পুরু দেয়াল
এক ছায়া
অন্ধকার করে দিলো আমাকে।
এখন সেই ছায়ার মাঝে বসবাস আমার
আমার স্বপ্নের আলো আমার সম্মুখে আর নেই
আমার চারিদিকে
শুধু দেয়াল
অভেদ্য সেই দেয়াল!

শুধু অন্ধকার
শুধু ছায়া
আমার হাত
আমার কালো হাত
আমার কালো হাত।
দেয়ালটা ভেঙে ফেলো
আমার স্বপ্ন খুঁজে দাও!
আমাকে সাহায্য করো
এ অন্ধকার বিদীর্ণ করতে
এ কালো রাত চূর্ণবিচূর্ণ করতে
এ ছায়া ভেদ করতে
শুধু সেই স্বপ্নই নিয়ে যেতে পারে আমাকে
সহস্র সূর্যলোক থেকে স্বপ্নাবর্তের হাজার সূর্যের কাছে।

চিন্তাসূত্রে প্রকাশিত কোনও লেখা পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ।

কোন মন্তব্য নাই.

লেখাটি সম্পর্কে আপনার মন্তব্য লিখুন