বাউলমন ও অন্যান্য ॥ গোলাম মোর্শেদ চন্দন | চিন্তাসূত্র
১৪ জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | ২৮ মে, ২০১৮ | সকাল ১০:৫৩

বাউলমন ও অন্যান্য ॥ গোলাম মোর্শেদ চন্দন

বাউলমন
ঘর চিনেছি পর চিনেছি, চিনেছি আপনজনা।
সে ঘরেতে থাকেন যিনি, সে হলেন বাউলমনা।

আমার আউলা মনের বাউলা হাওয়া
নিত্য করে বসবাস।
বাউলের একতারাতে
মন আমার হয় উদাস।
ও সেই উদাস মনে কুঞ্জবনে
ভাসে আলোর জোছনা।

নিজের ঘর চিনিলে পর চেনা যায়
চেনা যায় ভেতর-বাহির।
আত্মতত্ত্বের গোপন জ্ঞানে
আলোকিত হয় শরীর।
চন্দন বলে- সাধুসঙ্গে মিলেমিশে ভাব তরঙ্গে
করতে হয় বনিবনা।

দ্বিধা
মন যদি চায় সামনে যেতে
দেহ বলে যাবে না।
দেহ মনের দ্বন্দ্ব হলে
আসল পথটা পাবে না।
বন্ধুয়ারে বলছিরে শোন
যেতে চাইলে যাবে না।

মন যদি চায় ডাইনে যেতে
শরীর চায় যে কাছে পেতে
চাওয়া-পাওয়ার হিসাবটা তো
কোনো দিনই মেলে না।
কোনটা আসল কোনটা নকল
তার দেখা তাই পেলে না।
পথের ভেতর পথ হারালে
আর খুঁজে তো পাবে না।।

আমার চাওয়া-পাওয়ার জমাখরচ
মিলতে গিয়ে মেলে না।
জীবনের শেষ চাওয়া তাই
পেতে গিয়ে পেলে না।।

দুনিয়াতে সেই সুখী হয়
যার চাওয়াতে নেই অপচয়
সেই মানুষের দেখা পাওয়া
সহজে তো মেলে না।
সহজের মধ্যে কঠিন
একজীবনে পেলে না।
আপন বাড়ি দেখবে যেজন
ভুল পথে হারাবে না।

ঢেউ
তুমি এমন একটা নদী আমার
হৃদয়ভরা ঢেউ।
আপন করে চাই লুকাতে
দেখতে পেলে কেউ।
পাই না খুঁজে দুচোখ বুজে
উজান জলে ঢেউ।

যখনই ঢেউ ভেঙে যায়
কেঁপে উঠি খুব নিরালায়
বোঝে না তো কেউ।
আমার হৃদয়জুড়ে বইছে হাওয়া
ফাগুনের আশা যাওয়া
মন-মননে খুব গোপনে
বইছে যেমন ঢেউ।

বলি তারে হারাই না রে
হারাব না বন বাদাড়ে
হাওয়ার ঢেউয়ে ঢেউ।
তোমার ঢেউয়ের তরী কোন সে বনে
দিবানিশি আপন মনে
প্রজাপতির রঙিন ডানায়
উড়বে নাকি কেউ?

ভালোবাসা
ভালোবাসা মানে তোমাকে পাওয়া
ভালোবাসা মানে ফাঁকি।
একজীবনে যতটা পেয়েছি
ততটাই ছিল বাকি।
তাই তো নিজেকে নিজেই আমি
একাকিই শুধু আঁকি।

আঁকতে গিয়ে থাকতে দিয়ে
এঁকেছি নিজের ঘর।
নিজেকে চিনতে পারিনি কিনতে
হয়ে গেছি যাযাবর।
যাযাবর আমি হইনি ভূস্বামী
নিজেতেই নিজে থাকি।

থাকতে থাকতে আঁকতে আঁকতে
এঁকেছি যতটা ভুল।
সেই ভুলেরই ভুল ঠিকানায়
হৃদয়টা ব্যাকুল।

জীবনটাকে আপন করে
পারিনি কেন যে বুঝতে?
তবুও জীবন যাচ্ছে কেটে
শুধুই খুঁজতে খুঁজতে।
খুঁজতে গিয়ে হৃদয় দিয়ে
হৃদয়টাকে রাখি।

কালো-সাদা
ওরে দাদা কালো-সাদা ভালো করে চিনে যান।
যিনি খোদা তিনি ঈশ্বর ভগবান ও মেহেরবান।
ভোগ দিলে মেলে না ভগবান।

নিজেরে যে না চিনেছে, কেন খোঁজে ভগবানকে
অথির হয়ে নিজের ভেতর নিজেকে না খুঁজে পান।
গুরু বিনে এর গহীনে যায় না পাওয়া সে সন্ধান।
ভোগ দিলে মেলে না ভগবান।

সিন্নিতে মেলে না খোদা ভাবতে পারে পালের গোদা
অত্মতত্ত্ব পরম সত্য পরম্পরা তার প্রমাণ।
মারেফতে গোপণ পথে জানা যাবে কে মহান।
ভোগ দিলে মেলে না ভগবান।

চিন্তাসূত্রে প্রকাশিত কোনও লেখা পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ।


কোন মন্তব্য নাই.

লেখাটি সম্পর্কে আপনার মন্তব্য লিখুন