প্রেম দিমু না ও অন্যান্য কবিতা॥ শাহানা সিরাজী | চিন্তাসূত্র
২ চৈত্র, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | ১৬ মার্চ, ২০১৯ | রাত ৮:৩৮

প্রেম দিমু না ও অন্যান্য কবিতা॥ শাহানা সিরাজী

sahana-siraji-না যাইও বৈদেশে

এই বেহানে ঘুম ভাঙিলে দেখি আঁই কার মুখ
তুঁই কি আঁর হরান পাখি আঁর মনেরই সুখ
তোঁয়ার কতা অইলে মনে কাঁন্দন আইয়ে ম্যালা
আঁরে তুঁই একলা হালাই কেন্নে বৈদেশ গ্যালা?

হাতের মেন্দি হাতে ছিল কত রঙিন ছিল
তুঁই কৈলা: বউগো বউ এবার বিদায় বলো।
আঁই কইলাম: কী কন আন্নে কোন্দায় যাইবেন চইলা
আন্নের ছবি আঁর চোখে রাখুম জলে গাঁইত্থা

বুকের ভিতর পাষাণ বান্ধি কেন্নে থাকুম একা
আন্নে আর সাত হরান আঁর হাতের রেখা
আঁন্নে ছাড়া ঘুমামু আঁই কেন্নে কইয়া যান
আন্নেরলাইযে হরানখানি কইরবোরে আনচান।

হিছা মারো আঁর কোয়ালে লাইগদোনো আঁর টাকা
আন্নে ছাড়া এই দুনিয়ার সব কিছু আঁর ফাঁকা।
তোয়ার লাইগা রঙিন কাপড সোনার গয়না দামি
ম্যালা ম্যালা টাকা দিমু হইবা তুঁই আর রানি।

রাজাবিহীন রাজ্য যেমন আন্নেবিহীন আঁই
না যাইয়েন  বৈদেশত  আর আঁই আন্নের রাই।

প্রেম দিমু না
সোনাজান হুইন্না যান একখান গোপন কথা
আইজ আসমানে এত ম্যাঘ এত কেন ব্যথা
আজান অইলে কোথায় জান হাই না আন্নের দেখা
এপাশ ওপাশ খুঁইজা মরি আঁর হরানের খেতা।

হারারাইত আন্নের চুড়ি রুনুঝুনু বাজে
আন্নে আঁর কটুমপাখি ঠোঁট কেন্নে সাজে
মনে কয় কইলজা হাড়াই রাখি আন্নেরে
আন্নের মুখ আঁর হরানে শরৎ মেঘে নাচে!

পুকুরপাড়ে আন্নে যান হাইল্লাবাসন মাজনে
আঁইও থাকি আন্নের পাশে বোয়াল মাছের কান্দনে।
সোনাজান সোনার দেহ কত আর পুইড়বেন
চলেন এবার ঢাকা যাই আঁর কাছে থাইকবেন।

আন্নে যদি আঁর কথা মনে না রাখেন
উডান বাড়ি জঙ্গল ঘর খালি সাফ করেন
হারাদিনে আন্নের লগে যদি না হয় দেখা
দেওর ননদ শাশুড়ি লই রাখেন আঁরে একা

এবার গেলে আঁর হিরুম না কমুনা আর কতা
টাকাকড়ি সব হাইবেন প্রেম দিমু না ছাতা!
মুচকি হাইসসা সোনাজান ঘাড় ফিরাইয়া কয়
চান্দুর বাপের অইছে কী, এন কইরলে কী সয়!

বাড়িভর্তি এত্ত লোক শরম গেলো কই
সবারে আঁই উপাস রাখি কেন্নে হুতি রই!
আন্নে আছেন আঁচল খোঁটে কোম্‌রে বান্ধি রাখি
আন্নে ছাড়া থাইকতান ন আঁই হইয়া কুটুম পাখি!

আঁই যাইয়ের গৈ
নোলক পইরা কাঁন্দে কইন্না আঁই যাইয়ের গৈ
বাপের বাড়ি অইল আন্ধার জনম গেলো সই
এই পুকুরে কইচ্ছি স্নান এই না ঘাটে বই
এই না দাওয়ায় কাইটছে রাইত চান্দের আলো লই

এই উড়ানের পাতালতা সবই আঁই চিনি
আজ তুন তোরা অইলি পর আঁই তোদের মিনি
জারুল বনের মিড়া হাসি পারুল বোনের বাঁশি
শাপলা ফুলের দোলদোলানি বকুল তলায় রাশি

কাঁন্দে মিনি কাঁন্দে জগৎ কাঁন্দে পড়শী
সকল কান্দন ছাপিয়ে কাঁন্দে মার কবরে বসি
মা থাইকলে কাঁনতো মায়ে ভাই থাইকলে ভাই
বোন থাইকলে আঁচল ধরি কইতো দুলাভাই:

আঁর বোনেরে দিয়েন না দুখ্‌ রাইখেন ধরি বুকে
বোনে আঁর সবই জানে রাইখবো সে সুখে
বাপ থাইকলে কইতো বাপে জামাইর দুহাত ধরি:
মাইয়ারে আঁর রাইখবা সুখে কওনা কসম করি।

যার রে মিনি যায় এবার পথের দাবি লয়ে
বাপের বাড়ি ধীরে ধীরে যায় যে ম্লান হয়ে
নারী জীবন কত্ত কঠিন বুঝবে না নর ভুলে
এক দরিয়া চোখের জলে নারীর জীবন দোলে!

মন্তব্য

চিন্তাসূত্রে প্রকাশিত কোনও লেখা পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ।


কোন মন্তব্য নাই.

লেখাটি সম্পর্কে আপনার মন্তব্য লিখুন


webcams Etudiantes Live Jasmin Forester Theme