শামীম হোসেনের একগুচ্ছ কবিতা | চিন্তাসূত্র
৮ বৈশাখ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ | ২১ এপ্রিল, ২০১৯ | ভোর ৫:৪৪

শামীম হোসেনের একগুচ্ছ কবিতা

Shamim

চাঁদমুখ চাঁদে আর থাকে না এখন

আহা যন্ত্রণার সেতু কবির দুয়ারে তুমি পা ছাড়া কিছুই পাবে না। সেই নির্জন ফুল—যে একা একা ফুটে ছিল গাছে। সেও তো ঝরিয়েছে পাঁপড়ি…পবনের পালকিতে কী বার্তা নিয়ে এলে তুমি! লালসার ফণা তুলে কিভাবে ছড়াবে বিষ? ফাগুন শেষ হয়ে গেলে তোমার নিরালা ছাদে আর কোনো পাতা ঝরে না। পাগলের ঠোঁট ছুঁয়ে যে হাসি পালিয়ে গেছে দূর কোনো ফসলের মাঠে—কৃষকের কাস্তের কোপে ফালি হওয়া সেই হাসি—বলো তুমি কিভাবে লাগাবে জোড়া। চাঁদমুখ চাঁদে আর থাকে না এখন— বাঁশবাগানের ফাঁক গলে বেরিয়ে গেছে কোনো এক সুদূর নগরে…

দূরত্বের নিকট

যেভাবে এলে সেভাবে এলেই হতো
এই সবুজ বন খোলা রাখত চোখ—
দিগন্ত যেখানে হাঁটুমুড়ে বসে থাকে
সেখানেই উড়ছিল মোহনীয় চুল!

নিরাশার মেঘগুলো কেটে
এসেছিল সেই তুলোওড়া দিন
সংশয়ের ডানা মেলে
কমে ছিল দূরত্বের পথ…

যতটা সহজে এলে—
আসাটা তত সহজ ছিল না।

ক্ষমা করো বাংলা বিভাগ

কার জন্য খুলে রাখো ভাষার দরজা
মূর্খের চাদরে ফোটাও ফুলের ফোয়ারা
দেখো জোনাকিরা পড়তে আসে বনে
ছড়িয়ে যায় অমিত আলোর বর্ণমালা…

দেখো যে শিশু পড়তে শেখেনি আজো
মা ছাড়া শুদ্ধভাবে কিছুই ডাকে না—
কিভাবে শেখাবে তাকে এইসব শাস্ত্র-
ভাষাজ্ঞান, উপমা-ছন্দ-অলঙ্কার…

চালাকের চরকিতে নাচে তুরুপের তাস
মাটির গভীরে লুকায় ভাষার বেদনা—
তুমিই মহৎ হও আর খ্যাতিতে মহান
শেকড়ের কাছে গিয়ে আমি হব দাস!

রেখাচিত্রে অঙ্কিত

সর্প ঘুমায়ে থাকে
চঞ্চল হরিণীর চোখ
কেশর ফুলিয়ে সিংহ
ঢুকে যায় জামার ভেতর।

এলোমেলো চুলের মতো
উঠানে ছড়ানো মেঘ
ডেকে আনে গুণিনসম্মত
পানিপড়া—বাহুর তাবিজ!

রেখাচিত্রে অঙ্কিত নখ
তেড়ে আসে গলার নিকট
নীল হলে বিষের শরীর
চোখ খোলে বেহুলার নট!

মাকড়সার মতো

মাকড়সার মতো বিছিয়ে জাল
কার অপেক্ষায় গুনছো এই বিষণ্ন প্রহর—
আমিতো ক্ষুদ্র-তুচ্ছ-নগণ্য অতি
সময়ের ছাকনিতে কিভাবে ধরবে আমার প্রীতি!

চাইলেই ধরে রাখো—ছিঁড়ে দাও মুখচ্ছবি
আর স্ক্রিনে ভেসে ওঠে বিন্দু বিন্দু—দেহবল্লরী
তোমার পাশেই আমি কিংবা তুমি আমার পাশে
মাকড়সার মতো বিছিয়ে জাল গভীর ভালোবেসে!

মন্তব্য

চিন্তাসূত্রে প্রকাশিত কোনও লেখা পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ।


One Response to “শামীম হোসেনের একগুচ্ছ কবিতা”

  1. poliar
    মার্চ ২০, ২০১৬ at ১:০২ পূর্বাহ্ণ #

    valo laglo vai

লেখাটি সম্পর্কে আপনার মন্তব্য লিখুন